সৌর বিদ্যুতের আলোয় আলোকিত পাইন্দু ইউনিয়নের প্রত্যন্ত জনপদ

ক্যমুই অং মারমা, বান্দরবান অফিস,সিএইচটি২৪ডটকম
বান্দরবানের রুমা উপজেলায় পাইন্দু ইউনিয়নের দুর্গম ও প্রত্যন্ত এলাকার পাহাড়ি জনপদগুলো সৌর বিদ্যুতের আলোয় আলোকিত। যেসব এলাকায় বিদ্যুতের লাইন এখনও স্বপ্ন, সেসব এলাকাগুলোতে বিদ্যুতের চাহিদা পূরণ করেছে সৌর বিদ্যুৎ। সৌর বিদ্যুতের আলোয় বদলে গেছে ইউনিয়নে অন্ধকারাচ্ছন্ন গ্রামগুলোর চিত্র। পাল্টে গেছে জীবন-যাত্রার মান।

দুর্গম পাহাড়ে গ্রামের চিত্র

সংশ্লিষ্ট অফিস সূত্রে জানা গেছে, বর্তমান সরকারের প্রতিশ্রুতি হিসাবে প্রতি ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেয়ার লক্ষ্যে ‘ পার্বত্য চট্টগ্রামের প্রত্যন্ত এলাকায় সোলার প্যানেল স্থাপণের মাধ্যমে বিদ্যুৎ সরবরাহ প্রকল্প’ হাতে নেয় সরকার। এরই ধারাবাহিকতায় পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃক ২০১৬-১৭ অর্থ বছরে রুমা উপজেলার পাইন্দু ইউনিয়নের জন্য প্রায় তিনশতাধিক সোলার প্যানেল বরাদ্ধ দেয়া হয়। সে বরাদ্ধের আওতায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান, কমিউনিটি ক্লিনিকসহ এলাকার অসহায় ও গরীবদের মাঝে প্রায় দু‘শতাধিক সোলার প্যানেল বিতরণ করা হয়েছে।

গরীদের মাঝে সোলার প্যানেল বিতরণ

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, নিয়াংক্ষ্যাং পাড়া, পড়–য়া পাড়া, সইগং পাড়া, তংমক পাড়াসহ ইউনিয়নের দুর্গম প্রতন্ত এলাকার গ্রামে গ্রামে এখন সৌর বিদ্যুতের আলোয় আলোকিত। গ্রামাঞ্চলের ছোট ছোট চা দোকানগুলোতে অনেক রাত করে টেলিভিশন দেখে সময় কাটাচ্ছে মানুষ। রাতের অন্ধকারে ঘরের বাইরে আলো থাকায় বেড়েছে গ্রামের সৌন্দর্যও।

নিয়াংক্ষ্যাং পাড়ার কারবারী (গ্রাম প্রধান) থোয়াইচিংমং মারমা জানান, সৌর বিদ্যুৎ পেয়ে আমরা খুব খুশী। রাতে বিদ্যুৎ জ্বালানোসহ ছোট আকারে ফ্যান চালাতে পারছি। ছেলে-মেয়েরা আলোয় বসে লেখা পড়া করতে পারছে। কমে গেছে কুপি বাতির জ্বালানী খরচ।

তংমক পাড়ার মেঅং মারমা জানান, গ্রামে আগে উচ্চ বিত্ত ও মধ্য বিত্তদের ঘরেই আলো জ্বলত। আমাদের আর্থিকভাবে দুর্বলতার কারণে ইচ্ছা থাকলেও কিনতে পারিনা। এখন পাইন্দু ইউনিয়নে উহ্লামং চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর আমাদেরকে সোলার প্যানেলসহ সরঞ্জাম দিয়েছেন, এখন আমাদের ঘরেও আলো জ্বলে। রাতের আঁধারে ঘরের বাইরে আলো থাকায় নিরাপত্তা ব্যবস্থারও উন্নত হয়েছে।

সৌর বিদুতের আলোয় আলোকিত প্রত্যন্ত এলাকার ঘর-বাড়ি

১ নং পাইন্দু ইউনিয়নের চেয়ারম্যান উহ্লামং মারমা বলেন, পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি‘র নির্দেশনা অনুযায়ী সোলার প্যানেলগুলো বিতরণে ইউনিয়নের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন প্রত্যন্ত এলাকার গ্রামাঞ্চললোকে সর্বাধিক গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। এখন আমার ইউনিয়নে গ্রামীন জনজীবনের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে টেলিভিশন, কম্পিউটারসহ আধুনিক সুযোগ সুবিধা, যা বর্তমান সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার ঘোষনায় একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের সোলার প্যানেল প্রকল্পের টেকনিক্যাল অফিসার আশুতোষ চাকমা বলেন, এ প্রকল্পটি প্রধানমন্ত্রীর প্রকল্প। এ প্রকল্পের মাধ্যমে দুর্গম পাহাড়ের প্রত্যন্ত এলাকাগুলোতে বসবাসরত মানুষের বিদ্যুতের চাহিদা পূরণ হবে। প্রকল্পটি সুষ্ঠভাবে বাস্তবায়িত হলে প্রত্যন্ত জনপদের মানুষজন আর অন্ধকারে থাকবেনা, যা বর্তমান সরকারের ঘোষিত প্রতি ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেয়ার স্বপ্ন বাসÍবায়নে অগ্রণী ভূমিকা রাখবে।

Print Friendly

Post Comment