লংগদুতে অগ্নিসংযোগ ঘটনা পরিদর্শনে উষাতন তালুকদার এমপি

গত ১৪ জুন ২০১৭ রাঙ্গামাটি জেলার লংগদুতে সেটেলার বাঙালি কর্তৃক জুম্মদের ঘরবাড়িতে অগ্নিসংযোগ ও লটুপাটের ঘটনা পরিদর্শন করেছেন ২৯৯ পার্বত্য রাঙ্গামাটি সংসদীয় আসনের সংসদ সদস্য ও পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির সহ সভাপতি উষাতন তালুকদার। পরিদর্শনকালে তিনি হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত তিনটিলা, মানিকজোড়ছড়া, বাত্যা পাড়া ও বড়াদম গ্রাম সরেজমিন পরিদর্শন এবং বাত্যা পাড়ায় নিহত মটর সাইকেল চালক নুরুল ইসলাম নয়নের পরিবারের সাথে দেখা করেন। তিনি লংগদু উপজেলা সম্মেলন কক্ষে প্রশাসনিক কর্মকর্তা ও জনপ্রতিনিধিদের সাথে এবং মানিকজোড়ছড়ায় সাম্প্রদায়িক হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত জুম্মদের সাথে পৃথক দু’টি মতবিনিময় সভায় মিলিত হন।

লংগদু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার পক্ষে সহকারি কমিশন (ভূমি) এর সঞ্চালনায় উপজেলার প্রশাসনিক কর্মকর্তা ও জনপ্রতিনিধিদের সাথে লংগদু উপজেলা সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সাংসদ উষাতন তালুকদার এবং অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য প্রদান করেন রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের সদস্য জানে আলম ও লংগদু উপজেলা চেয়ারম্যান তোফাজ্জল হোসেন।

উষাতন তালুকদার তাঁর বক্তব্যে তিনি মটর সাইকেল চালক নুরুল ইসলাম নয়নকে হত্যার ঘটনা যেমনি নিন্দনীয়, তেমনি নয়ন হত্যার ঘটনাকে কেন্দ্র করে নিরীহ জুম্ম গ্রামবাসীর ঘরবাড়ি অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটের ঘটনাও অমানবিক ও ন্যাক্কারজনক। তিনি এ ঘটনার সাথে জড়িত সকলকে আইনের আওতায় দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদানের দাবি জানান। তিনি স্থানীয় প্রশাসনকে নিরপেক্ষ তদন্ত পূর্বক পক্ষপাতিত্বহীনভাবে ভূমিকা পালনের আহ্বান জানান। ক্ষতিগ্রস্ত জুম্ম গ্রামবাসীরা পুলিশসহ প্রশাসনের উপর আস্থা রাখতে পারছে না। তাদেরকে আস্থায় নিয়ে আসার জন্য ক্ষতিগ্রস্ত জুম্ম গ্রামবসাীদের জানমালের যথাযথ নিরাপত্তা প্রদানে প্রশাসনকে নিরপেক্ষ ভূমিকা পালন করতে হবে বলে তিনি অভিমত ব্যক্ত করেন। তিনি ক্ষতিগ্রস্ত জুম্ম গ্রামবাসীদের ঘরবাড়ি নির্মাণসহ যথাযথ ক্ষতিপূরণ ও পুনর্বাসন প্রদান এবং উক্ত পুনর্বাসনের কার্যক্রম টাস্কফোর্সের মাধ্যমে বাস্তবায়ন করার দাবি জানান।

এর আগে মানিকজোড়ছড়ায় অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় উষাতন তালুকদার এমপি অংশগ্রহণ করেন। উক্ত মতবিনিময় সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন লংগদু বিপর্যয় ত্রাণ সহায়তা সমন্বয় কমিটির আহ্বায়ক ও পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক কমিটির সভাপতি গৌতম দেওয়ান, কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক প্রকৃতি রঞ্জন চাকমা ও জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সাবেক সদস্য নিরূপা দেওয়ান।

উক্ত সভায় উষাতন তালুকদার এমপি বলেন, লংগদুতে জুম্মদের ঘরবাড়ি লুটপাট ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা একটি অমানবিক ঘটনা। তিনটি গ্রামে সেটেলার বাঙালি কর্তৃক যে অগ্নিকান্ড সংঘঠিত হয়েছে সেটি পরিকল্পনা ছিল। কেননা পরিকল্পিত যদি না হতো তাহলে তেল, পেট্্েরাল দিয়ে বাড়িতে আগুন দেওয়া হত না। মোটরসাইকেল চালক নুরুল ইসলাম নয়নকে খাগড়াছড়িতে হত্যা করা হয়। কিন্তু লংগদুতে পাহাড়িদের বাড়িতে অগ্নিসংযোগ দেওয়া মানবাধিকার লঙ্ঘিত হয়েছে। এছাড়া তিনি নয়ন হত্যাকারীদের সুষ্ঠ তদন্ত করে ও লংগদুতে অগ্নিসংযোগ ঘটনাটি সরকারের কাছে তদন্তের মাধ্যমে অপরাধীদের শাস্তি দাবী জানান। তিনি ঘটনাটি সম্পর্কে সরকারের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট জানিয়েছে এবং পয়েন্ট অব অর্ডারে জাতীয় সংসদে উত্থাপন করেছেন। তারই অংশ হিসেবে স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমের নেতৃত্বে ১৪ দলের একটি প্রতিনিধিদল লংগদু ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শনে এসেছেন বলে জানান। তিনি সংসদীয় তদন্ত টীম পাঠানোর জন্য সংসদে প্রস্তাব তুলে ধরেছেন বলে জানান।

মতবিনিময় সভা শেষে লংগদু বিপর্যয় ত্রাণ সহায়তা সমন্বয় কমিটির উদ্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত ২২৪ টি জুম্ম পরিবারকে আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হয়। ২২৪ টি ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মধ্যে তিনটিলায় ৮৪টি, মানিকজোড়ছড়ায় ৮৮ টি এবং বাত্যা পাড়ায় ৪২টি পরিবারে ত্রাণ বিতরণ করা হয়। ক্ষতিগ্রস্ত প্রতিটি পরিবারকে নগদ ৬ হাজার টাকা, একটি করে লুঙ্গি, পিনোন, গামছা, পাটি, ছাতা ও মশারীসহ উত্তোলিত প্রয়োজনী ত্রাণ সামগ্রী প্রদান করা হয়। এছাড়া ডা: উদয় শংকর দেওয়ান ও ও ডা: বিনয় দেওয়ানের নেতৃত্বে ২৩৬ জন অসুস্থ রোগীকে বিনামূল্য চিকিৎসা প্রদান করা হয়।
সৌজন্যঃ জেএসএস ফেসবুক পেজ

Print Friendly

Post Comment